আর মাত্র ১ দিন বাকি অ্যাপলের বাৎসরিক ইভেন্ট এর। তাই একবার দেখে নেয়া যাক,কয়টি আইফোন থাকছে এই ইভেন্টে।

নতুন আইফোন এইবার দুটি সেকশনে উদ্বোধন হবে। প্রিমিয়াম সেকশনে থাকছে আইফোন টেন এস, অ্যাপেলের ৫’৮” সাইজের মডেলটি যার থাকছে একটি উন্নত ওলেড ডিস্প্লে। একই হার্ডওয়ার দিয়ে থাকছে আইফোন টেনএস ম্যাক্স, যার ডিসপ্লে সাইজ থাকছে ৬’৫” এবং দামেও থাকছে সাব্র উপরে। উন্নত মানের স্পেসিফিকেশন থাকছে উভয় ফোনেই।

৬’১” সাইজের আরেকটি মডেল এর গুঞ্জন অনেক আগে থেকেই শোনা গেলেও এই ইভেন্টে অ্যাপেল ফোনটি উদ্বোধন করবে কিনা, সেটা এখনও জানা যায় নাই। এই ফোনে থাকছে একটি এলসিডি প্যানেল যা পূর্বের আইফোন গুলোর মতই একই প্রযুক্তিতে বানানো। ব্লুমবারগ এর রিপোর্ট অনুযায়ি এই ফোনটিকে আইফোন টেন আর বলা হবে।

এটি অফিসিয়ালি ঘোষনা হওয়ার পর, ফোনটি সরাসরি বিক্রয় করা হবে, নাকি কিছুদিন পরে বাজারে আসবে, সেটা এখনও বলা যাচ্ছে না। ফোনটি বাজারে আসায় দেরী হওয়ার কারন হিসেবে অনেকেই এর এলসিডি ডিসপ্লে কে দায়ি করছেন, যা ডিসপ্লে উৎপাদনকারীদের জন্য অত্যন্ত কষ্টসাধ্য হয়ে উঠছে বলে মনে করা হচ্ছে।

আইফোন টেন আর হয়তো অন্যান্য মডেল্গুলোর সাথেই উদ্বোধন হইতে পারে কিন্তু সল্প সংখ্যায়। বরাবরের মতই অ্যাপেল কিছুদিন দেরী করে তাদের সেই প্রোডাক্টগুলো বাজারে আনবে যেগুলোর প্রোডাকশনে প্রযুক্তিগত সমস্যার সম্মুখিন হতে হয়। অ্যাপেল এই কাজটি করে তাদের প্রোডাক্ট কোয়ালিটি ঠিক রাখার জন্য এবং অ্যাপেল এর কাস্টোমারদের যেন কোন রকম বিরক্তিকর অবস্থায় না পরতে হয়, তার জন্য। তাই আশা করা যায় যে, ফোনটি অক্টোবর অথবা নভেম্বর নাগাত বাজারে পাওয়া যাবে অধিক সংখ্যায়।

এই মার্কেটিং পদ্ধতিতে অ্যাপেল তাদের প্রিমিয়াম ফোন গুলোকে সবার আগে কাস্টমারদের কাছে পৌছায় দিতে পারবে এবং যখন মডেলগুলির বিক্রি কমে যাবে তখন নতুন এই বাজেট মডেলটি বাজারে আনতে পারে।

অ্যাপেল ইভেন্টে আইফোন ছাড়াও অন্যান্য প্রোডাক্ট, যেমন- আইপ্যাড প্রো, অ্যাপেল ওয়াচ ৪ এবং একটি নতুন ম্যাক ও উদ্বোধন করতে পারে।

যারা ইভেন্টি দেখতে ইচ্ছুক, তারা অ্যাপেল এর ওয়েবসাইটে চোখ রাখুন আগামিকাল রাত ১১ঃ০০ টায়।

 

Related

কমেন্ট করুন