স্লাইডার ফোনের ফিরে আসা দেখে আমি অস্বাভাবিক ভাবে খুশি। ফোনের স্লাইডের শব্দের চেয়ে বেশি সন্তুষ্টির আর কিছু নেই টেক জগতে। আর এই আনন্দটি শাওমি তাদের বেজেল-ছাড়া নতুন স্মার্টফোনে নিয়ে এসেছে। ৪ টি ক্যামেরা, সিরামিক বডি ও বেজেল-ছাড়া ডিসপ্লে নিয়ে এসেছে শাওমি মি মিক্স ৩।

মি মিক্স ৩ দেখলেই প্রথমে আপনার চোখে যা আসবে তা হল, ৬’৩৯” ফুল এইচডি + অ্যামোলেড প্যানেল যা স্যামসাং এর বানানো। এর ডিসপ্লে অনুপাত ১৯.৫ঃ৯ এবং ৬০০ নিট ডিসপ্লে ব্রাইটনেস! সাথে আরও থাকছে ৯৩.৪% ডিসপ্লে। কোন নচ নেই এবং সর্বনিম্ন বেজেল যার সাথে রয়েছে করনিং এর গোরিলা গ্লাস ৫। এর সাথে থাকছে সর্বদা অন ডিসপ্লে!

শাওমি মি মিক্স ৩ দিচ্ছে ৬’৩৯” সাইজের অ্যামোলেড ডিসপ্লে যা ৯৩.৪% স্ক্রিন-টু-বডি অনুপাতের এবং এই ডিসপ্লেতে কোন নচ নেই !

ফোনটি হাতে নিলেই সবার আগে যেটি লক্ষ্য করবেন সেটি হল এর ওজন; এটি বর্তমান বাজারের সবচেয়ে ভারী ফোন গুলোর মধ্যে একটি। এর ওজন ২১৮ গ্রাম, ১০% বেশী ভারি ভিভো নেক্স অথবা গ্যালাক্সি নোট ৯ এর চেয়ে! মি মিক্স ৩ গ্যালাক্সি নোট ৯ এর চেয়ে কিছুটা পাতলা এবং ছোট কিন্তু সিরামিক ব্যাক পানেলটি আরো বেশী বাঁকানো।

ফোনটির ম্যানুয়েল স্লিডিং সিস্টেমটি একটি অসাধারণ কোয়ালিটির; নিওডিমিয়াম ম্যাগনেট ব্যবহার করা হয়েছে এই স্লাইডিং লক সিস্টেমে। শাওমি দাবি করছে এই স্লাইডটি ৩০০,০০০ সাইকেল স্লাইড সহ্য করতে সক্ষম। অন্যান্য ফোনগুলোর মত এতে কোন মটর ব্যবহার করা হয় নাই; সম্পূর্ণ ম্যানুয়েল পদ্ধতির স্লাইডিং সিস্টেম এটি।

ম্যানুয়েল স্লাইডার টি নিওডিনিয়াম ম্যাগনেট ব্যবহার করে স্ক্রিন লক এর জন্য। এটি অনেক সুন্দর, আপনাকে আগের সেই স্লাইডিং ফোনের কথা মনে করিয়ে দিবে।

ডিফল্ট স্লাইডিং এর মাধ্যমে আপনি ফ্রন্ট-ক্যামেরাটি চালু করতে পারবেন, কিন্তু এটিকে আপনার পছন্দ মত কল রিসিভ অথবা অন্যান্য অ্যাপ ওপেন করার জন্যেও ব্যবহার করতে পারবেন। স্লাইডার সাউন্ডও পরিবর্তনযোগ্য। ফোনটিতে অ্যান্ড্রয়েড পাই ব্যবহার করা হয়েছ; সাথে আছে মিইউআই ১০। গেমিংএর সময় স্লাইড টি দিয়ে গেম মেনু, স্ক্রিন রেকর্ডিং অথবা স্ক্রিনশট নিতে পারবেন।

ফোনটির স্লাইডার শুধু মজার জন্য না, অন্যান্য বেজেল বিহীন ফোন যেমন- অপো ফাইন্ড এক্স এবং ভিভো নেক্স এর মতই শাওমির ফ্রন্ট ক্যামেরা তখনই বের হয়, যখন আপনি স্লাইডারটি খুলবেন। যদি আপনি ফ্রন্ট ক্যামেরা অথবা ফেস আনলক সুবিধা ব্যবহার না করেন, তাহলে স্লাইডারটি খোলার কোনই দরকার নাই। কেবল যখন আপনি ফোন আনলক অথবা সেলফি নিবেন, তখনই এটার প্রয়োজন পরবে।

ফ্রন্ট ক্যামেরাটি যখন দরকার, তখনই বের হয়, তাছাড়া কোন মটর চালিত স্লাইডার ব্যবহার হয় নি এতে।

এই ফ্রন্ট ক্যামেরা গুলোর একটি ২৪ মেগাপিক্সেল আইএমএক্স৫৭৬ সেন্সর, যার ১.৮ মাইক্রন পিক্সেল সাইজ এবং এফ/২.২ অ্যাপারচার লেন্স আছে। আরেকটি ২ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা রয়েছে পোর্টরে এবং বোকেহ ইফেক্ট এর জন্য। প্রধান সেন্সরটি পিক্সেল গূলোকে একত্র করে আল্প আলোতে তোলা ছবির জন্য এবং ৬ মেগাপিক্সেল সাইজ এর ফটো তোলে। তারপর এটিকে আবার পূর্ববর্তী সাইজে নিয়ে যায়। ক্যামেরাতে এআই সাপোর্ট থাকায় যা খুব সহজেই করা যায়। এতে, পোর্টরে মোড, স্টূডিও লাইটিং ইফেক্টেবং বিউটি মোড রয়েছে।

মি মিক্স এর বক্সে একটি কেস ও দেওয়া আছে, আ হালকা ও দেখতে সুন্দর। ইউএসবি টাইপ-সি ব্যবহার করায় চার্জ এর গতিও অনেক বেশী। আপনি চার্জে লাগানো অবস্থায়ই ফোনের স্লাইডার খুলতে পারবেন। এর সাথে ফ্রি ১০ওয়াট ওয়ারলেস চারজার ও দেওয়া আছে। এবং ৫ভি/৩এ, ৯ভি/২এ, ১২ভি/১.৫এ চারজার ও রয়েছে, যা কুইক চার্জ ৩ সাপোর্ট করে।

এতে একটি ৩২০০ এমএএইচ ব্যাটারি রয়েছে। কিছুটা ছোট ব্যাটারি হলেও এর ফাস্ট চার্জ তা পুশিয়ে দেয়। মি মিক্স ৩ কোয়াল্কম কুইক চার্জ ৪+ ও সাপোর্ট করে। আপনি কিউআই ৪ সাপোর্ট করে এমন চারজার ব্যবহার করতে পারেন।

ফোনটির পিছনের সাইডে সিরামিকের তৈরী ব্যাক রয়েছে এবং ক্যামেরাটি খুব সুন্দর মত বসানো। নিচের দিকে মিক্স লোগো রয়েছে। মাঝের দিকে একটি ফিঙ্গার প্রিন্ট সেন্সরও আছে। মি মিক্স এ এনএফসি ও রয়েছে।

নিচের দিকে রয়েছে ২ টি স্পিকার গ্রিল কিন্তু একটিই মাত্র স্পিকার, অন্যটি মাইক্রোফোন। এই স্পিকারটি যথেস্ট জোরে বাজে কিন্তু বেস্ট বলা যায় না। দুঃখের বিষয় যে, মি মিক্সে কোন হেডফোন জ্যাক নেই। আপনি প্যাকেটে একটি ইউএসবি টাইপ-সি টু ৩.৫ এমএম কনভারটার পাবেন। ফোনটিকে পানি থেকে দূরে রাখাই ভাল, কারন এতে কোন আইপি সার্টিফিকেট নেই। একটি ইউএসবি টাইপ-সি হেডফোন সাথে দেওয়া আছে।

পিছনের দুটি ক্যামেরাই ১২ মেগাপিক্সেল এর। সনি আইএমএক্স সেন্সর ব্যাবহার হয়েছে এতে, যার মাইক্রন সাইজ ১.৩ এবং এফ/১.৮ অ্যাপারচারের লেন্স যা ৪ এক্সিস ওআইএস দেয়া। দ্বিতীয় ক্যামেরা টি স্যমসাং সেন্সর, যা ১ মাইক্রন পিক্সেল সাইজের এবং ২এক্স অপ্টিক্যাল জুম সমৃদ্ধ। এর আপারচার এফ/২.৪।

উভয় ক্যামেরাতেই এআই সাপোর্ট রয়েছে। সনি সেন্সর দিয়ে আপনি ৯৬০এফপিএস এর স্লো-মশন ভিডিও করতে পারবেন। কিন্তু এটি খুব হাই কোয়ালিটির হবে না।

শাওমি এই ফোনটির কম আলোর ফটোগ্রাফি নিয়ে অনেক আশাবাদি এবং এর ছবি হুয়াওয়ে পি২০ প্রো এর সাথে তুলনা করছে। কিছু পার্থক্য থাকলেও এটি অনেকটাই একই রকম ছবি তোলে, যদিও হুয়াওয়ের নতুন মেট ২০ প্রো এর সাথে এর তুলনা করলে, বুঝা যাবে যে শাওমি কত টুকু ক্যামেরাতে এগিয়েছে।

মি মিক্স ৩ তে সর্বচ্য ১০ জিবি র‍্যাম ব্যবহার করা হয়েছে। তার সাথে থাকছে ২৫৬জিবি স্টোরেজ এবং স্ন্যপড্রাগন ৮৪৫ – ৳৬৩০০০ এর মত দাম হতে পারে।

এছাড়াও এড্রিনো ৬৩০ জিপিইউ, ৬ জিবি/ ১২৮জিবি , ৮জিবি/১২৮জিবি এবং ৮জিবি/২৫৬জিবি ভার্সন ও ছাড়ছে শাওমি।

Related

কমেন্ট করুন